ভোটার আইডি কার্ড কিভাবে ডাউনলোড করবেন।

vooter id card download
vooter id card download

আপনি যদি ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে না জানেন তাহলে আজকের বিষয়বস্তু আপনার জন্য। আমরা এটি খুব সহজ উপায়ে করতে পারি। আপনি সহজেই আপনার স্মার্টফোন বা কম্পিউটার থেকে নতুন আইডি কার্ড দেখতে এবং ডাউনলোড করতে পারেন। NID কার্ড ডাউনলোড করতে আপনাকে অবশ্যই কিছু পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে।

vooter id card download
vooter id card download

জাতীয় পরিচয় পত্রের ওয়েবসাইট https://services.nidw.gov.bd/

ভোটার আইডি কার্ড  কেন ডাউনলোড করব

আপনি যদি ভোটার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করে থাকেন তাহলে আপনাকে অবশ্যই ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে হবে। আপনি যাই করুন না কেন, আপনার একটি ভোটার আইডি কার্ড থাকতে হবে। অফিস-আদালতের ক্ষেত্রে, কিংবা সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলতে ইত্যাদির ক্ষেত্রে আমাদের প্রতিদিনের কাজে ভোটার আইডি কার্ডের প্রয়োজন হয়।

ভোটার আইডি কার্ড কি কি কাজে লাগে

আপনার যদি একটি নতুন ভোটার অ্যাপ্লিকেশন থাকে তবে আপনাকে অবশ্যই আপনার NID কার্ড ডাউনলোড বা পরীক্ষা করতে হবে। কারণ আপনি বর্তমানে আপনার ভোটার আইডি কার্ড ছাড়া কোনো কাজ সম্পন্ন করতে পারবেন না। আমাদের দৈনন্দিন জীবন ভোটার আইডি। ভোটার আইডি কার্ড ছাড়া কোনো কাজ করা সম্ভব নয়। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন কাজের জন্য ভোটার আইডির প্রয়োজন হয়। কৃষিতে ভোটার আইডি কার্ডের প্রয়োজনীয়তা নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো। যেমন

  • শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি
  • জাতীয় পরিচয় পত্র তৈরি করতে
  • ভোটের তালিকা নাম করতে
  • বিবাহ আবদ্ধ হলে
  • সরকারি বা বেসরকারি কোনো প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের ক্ষেত্রে
  • জমিজমা রেজিস্ট্রেশন করতে
  • ব্যাংকেযেকোনো ধরনের অ্যাকাউন্ট খুলতে
  • ট্রেড লাইসেন্স প্রাপ্তি

ইত্যাদি আমরা ভোটার আইডি কার্ড ছাড়া এই সব কাজ করতে পারি না। তাই আমাদের ভোটার আইডি কার্ড একান্ত প্রয়োজনীয় এবং প্রয়োজনীয়।

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে যা যা লাগবে

আপনি যদি ভোটার আইডি কার্ড পরীক্ষা করতে চান তবে আপনার কিছু নথির প্রয়োজন হবে। কি কি নথি প্রয়োজন তা নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

  • ভোটার নিবন্ধন ফরমের স্লিপ
  • জন্ম তারিখ
  • স্থায়ী ঠিকানা ও বর্তমান ঠিকানা ( বিভাগ, জেলা ,উপজেলা)
  • কম্পিউটার ল্যাপটপ   বা স্মার্ট ফোন
  • একটি  অ্যাক্টিভ  মোবাইল  নাম্বার
  • অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন যেটির মাধ্যমে ভেরিফিকেশন করতে হবে

উপরের তথ্য বা নথির সাহায্যে আমরা সহজেই ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারি।

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করার নিয়ম

আপনি ভোটার আইডি কার্ড চেক বা ডাউনলোড করতে চান কিন্তু কোন পদ্ধতি জানেন না। তাই আজকে দেখাবো কিভাবে ঘরে বসে সহজেই ডাউনলোড করবেন। মূলত এটি করা কঠিন কাজ নয়। নিচের পদ্ধতি অনুসরণ করে আপনি সহজেই NID কার্ড ডাউনলোড করতে পারেন।

প্রয়োজনীয় অ্যাপ ডাউনলোড

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে, আপনাকে সরকার অনুমোদিত অ্যাপ ডাউনলোড করতে হবে। অ্যাপস ডাউনলোড করার পদ্ধতি নিচে দেওয়া হল।

  • প্রথমে আপনি গুগল প্লে স্টোরে চলে যান ।
  • এবং উপরে থাকা সার্চ বক্সে (NID Wallet) লিখে সার্চ করুন ।
  • কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন এবং দেখবেন এই ধরনের অ্যাপস আপনার সামনে আসছে।
  • এবার install বাটনে ক্লিক করুন। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পর অ্যাপটি ডাউনলোড হয়ে যাবে।
  • মূলত এই অ্যাপটির মাধ্যমে আপনি  ফেইস ভেরিফিকেশন করবেন ।

জাতীয় পরিচয় পত্র ও একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন ও লগইন

স্লিপ নম্বর, জাতীয় পরিচয়পত্র, ভোটার আইডি কার্ড নম্বর সহ NID পরিষেবার ওয়েবসাইটে গিয়ে নিবন্ধন করতে হবে। আপনি যদি 2019 এর পরে স্থূল হন তবে আপনার একটি ভোটার আইডি স্লিপ থাকতে পারে। তাহলে আপনি সহজেই জাতীয় পরিচয়পত্র পেতে পারেন। আসুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে জাতীয় পরিচয়পত্রের ওয়েবসাইটে নিবন্ধন বা লগইন করবেন।

প্রথম ধাপঃ জাতীয় পরিচয়পত্রের হিসাব খুলতে হবে। একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে এই লিঙ্ক অনুসরণ করুন. এরকম একটি ইন্টারফেস এখন আপনার সামনে আসবে।

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড

  • রেজিস্ট্রেশন করুন বাটনে ক্লিক করুন ।
  • জাতীয় পরিচয় পত্র বা ফরম নম্বর স্থানটিতে ১৬  বা ১৭ ডিজিটের নম্বরটি বসান ।
  •  এবং জন্মতারিখ স্থানে সঠিক জন্ম তারিখটি দিন ।
  • মনে রাখবেন আপনাকে অবশ্যই সঠিক জন্মতারিখ লিখতে হবে বা আপনার ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড ব্যর্থ হবে।
  • তারপরে নিচে জল ছাতার মধ্যে যে শব্দগুলো আছে চটি সঠিকভাবে বসান
  •  সম্পূর্ণ কার্যক্রম শেষ হলে এখন সাবমিট বাটনে ক্লিক করুন ।

দ্বিতীয়তঃ এই ধাপে আপনাকে অবশ্যই আপনার বর্তমান এবং স্থায়ী ঠিকানা (বিভাগ, জেলা, উপজেলা) দিতে হবে।

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড

তৃতীয় ধাপঃ উপরের তথ্য সঠিক হলে আপনার মোবাইল নম্বর দেখানো হবে। অথবা আপনি একটি সক্রিয় মোবাইল নম্বর দিয়ে অ্যাকাউন্ট যাচাই করতে পারেন। আপনার হাতে আপনার মোবাইল নম্বর থাকতে হবে কারণ এতে OTP পাঠানো হবে। OTP কোড যাচাইকরণ কোডে ক্লিক করুন এবং বার্তা পাঠান।

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড

চতুর্থ ধাপঃ এখন আপনার ইনস্টল করা মুখ যাচাইকরণের জন্য সরাসরি অ্যাপটি খুলুন। আপনি আপনার মুখ যাচাইকরণের জন্য একটি QR কোড দেখতে পাবেন। আপনি যে মোবাইলে NID ইনস্টল করেছেন সেটি নিন, অ্যাপটি খুলুন এবং QR কোড স্ক্যান করুন। এখন আপনাকে যা করতে হবে তা হল 3টি সাইট থেকে নিজের 3টি ছবি তুলতে। আপনার ভেরিফিকেশন সম্পন্ন হলে নিচের মত একটি পেজ খুলবে। এখানে আপনার পাসওয়ার্ড সেট করুন.

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড

 

পঞ্চম ধাপঃ পাসওয়ার্ড সেট করার পর এখন জাতীয় পরিচয়পত্রের ওয়েবসাইটে গিয়ে লগইন করুন। আপনি আপনার ছবির প্রোফাইল দেখতে পাবেন যা এই মত দেখাবে। ডাউনলোড দেখতে নিচে স্ক্রোল করুন। এখন ডাউনলোড এ ক্লিক করুন। এটি ডাউনলোড করুন.

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড সংক্রান্ত  যত প্রশ্ন

ভোটার আইডি কার্ড কিভাবে বানাবো?

উত্তরঃআপনার বয়স ১৮ বছর বা তার বেশি হলেই আপনি ভোটার আইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্রের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন ।

মোবাইল নাম্বার দিয়ে কি ভোটার আইডি কার্ড  ডাউনলোড

উত্তরঃ না। আপনি কখনই মোবাইল নম্বর দিয়ে আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন না। মোবাইল নম্বর নেওয়া হয় মূলত তথ্য আপডেট করার জন্য।

ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে গেলে করণীয় কি?

 উত্তরঃ আপনার ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে গেলে প্রথমে থানায় জিডি করতে হবে। মূল কপি সংযুক্ত করুন এবং পুনরায় ইস্যু জন্য আবেদন করুন.

আরো পড়ুনঃ ঘরে বসে জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য আবেদন করার নিয়ম

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড নিয়ে শেষ কথা

উপরে আলোচিত পদ্ধতিগুলি অনুসরণ করে আপনি চাইলে ঘরে বসেই এটি করতে পারেন। এতে আপনার ঝামেলা কমবে এবং অতিরিক্ত খরচ হবে না। আমি আশা করি এই নিবন্ধটি আপনাকে কিছুটা সাহায্য করেছে। অনুগ্রহ পূর্বক আমার সাথে থাকুন ।

0 Shares:
Leave a Reply

Your email address will not be published.

You May Also Like