মোবাইলের জন্য সেরা ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার ২০২২

The best video editing software in 2022
The best video editing software in 2022

আসসালামুআলাইকুম। আশা করি সবাই ভালো আছেন। আজ আমি মোবাইলের জন্য সেরা 10 ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার নিয়ে আলোচনা করব। বিভিন্ন সময়ে টুকটাক ভিডিও এডিটিং বা প্রফেশনাল ভিডিও এডিটিং এর জন্য মোবাইলে ভিডিও এডিট করতে হয়। একটি ভিডিওর মান অনেকটাই নির্ভর করে তার এডিটিং এর উপর।

The best video editing software in 2022
The best video editing software in 2022

আপনি যদি একজন নতুন ইউটিউবার হন তবে আপনি এই সুন্দর সম্পাদনার মাধ্যমে আপনার দর্শকদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠতে পারেন। কারণ খারাপ ভিডিও এডিটিং সবার নজর কাড়ে। কিন্তু আপনার এডিটিং যদি উচ্চ মাত্রার হয় তাহলে দর্শকরা আপনার ভিডিওতে ডুবে থাকবে। আর ভালো ভিডিও এডিটিং এর জন্য ভালো ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার প্রয়োজন। তাই আজ আমি 10টি জনপ্রিয় ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার নিয়ে আলোচনা করব। এখান থেকে আপনি আপনার চাহিদা এবং পছন্দ অনুযায়ী যেকোনো একটি ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার নির্বাচন করতে পারেন। এই ভিডিও সম্পাদনা সফ্টওয়্যারটির তালিকায় বিনামূল্যে ভিডিও সম্পাদনা সফ্টওয়্যারের পাশাপাশি প্রিমিয়াম ভিডিও সম্পাদনা সফ্টওয়্যার অন্তর্ভুক্ত থাকবে। কিন্তু আপনি চাইলে অনলাইন থেকে সহজেই প্রিমিয়াম ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যারের মড সংস্করণ ডাউনলোড করতে পারেন।

চলুন শুরুতেই দেখে নেওয়া যাক সফটওয়্যারের তালিকা

  1. Wondershare Filmora
  2. InShot
  3. WeVideo
  4. Adobe Premiere Rush
  5. PicPlayPost
  6. VideoShow
  7. PowerDirector
  8. Quik
  9. KineMaster
  10. VivaVideo

উপরে উল্লিখিত সফ্টওয়্যারের সাহায্যে আপনি সহজেই এবং অল্প সময়ের মধ্যে ভিডিওগুলি সোশ্যাল মিডিয়াতে আপলোড করার মতো সম্পাদনা করতে পারেন। সফ্টওয়্যার সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা যাক এবং তাদের সুবিধা এবং অসুবিধা সম্পর্কে জানুন।

১. Wondershare Filmora

FilmoraGo Video Editor & Maker

আপনি যদি ভিডিও সম্পাদনার জগতে নতুন হয়ে থাকেন তাহলে Wondershare Filmora আপনার জন্য উপযুক্ত। এই সফ্টওয়্যারটিতে মৌলিক থেকে উন্নত স্তর পর্যন্ত ভিডিও সম্পাদনা বৈশিষ্ট্য রয়েছে। সফ্টওয়্যারটি বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মের জন্য ভিডিও আকার পুনরায় সেট করে। ফলস্বরূপ, আপনি সহজেই একটি নিখুঁত আকারের ভিডিও সম্পাদনা করতে পারেন। আপনি চাইলে আপনার উইন্ডোজ বা ম্যাক পিসিতেও এই সফটওয়্যারটি ব্যবহার করতে পারেন। আপনি গুগল প্লে স্টোর থেকে বিনামূল্যে সফ্টওয়্যার ডাউনলোড করতে পারেন. গুগল প্লে স্টোর থেকে সফটওয়্যারটি 50 মিলিয়নেরও বেশি বার ডাউনলোড করা হয়েছে। প্লে স্টোর থেকে এই সফটওয়ারটি সরাসরি ডাউনলোড করার জন্য এখানে ক্লিক করুন

আরো পড়ুনঃ eSIM কি? eSIM কিভাবে কাজ করে?

২. InShot

Video Editor & Maker - InShot

InShot বর্তমানে স্মার্টফোনে ভিডিও সম্পাদনার জন্য সেরা সফটওয়্যারগুলির মধ্যে একটি। খুব কম বাজেটের ফোনেও ইনশট দিয়ে খুব ভালোভাবে ভিডিও এডিটিং করা যায়। InShot-এ অনেকগুলি প্রভাব এবং অ্যানিমেটেড গ্রাফিক্স রয়েছে যা আপনি আপনার ভিডিওকে উচ্চ স্তরে নিয়ে যেতে ব্যবহার করতে পারেন। বর্তমানে বিভিন্ন ফেসবুক পেজ এবং গ্রুপে যেসব ভিডিও পাওয়া যাচ্ছে তার বেশির ভাগই ইনশট দিয়ে এডিট করা হয়েছে। তাছাড়া ফ্রি ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার হিসেবে InShot-এ বিজ্ঞাপন দেখে ওয়াটারমার্ক মুছে ফেলার সুবিধা রয়েছে। সফ্টওয়্যারটি গুগল প্লে স্টোর থেকে 100 মিলিয়ন বার ডাউনলোড করা হয়েছে। এবং ব্যবহারকারীর পর্যালোচনা 4.5 তারা। আপনি অনলাইনে এই অ্যাপটির প্রিমিয়াম সংস্করণ পাবেন। প্লে স্টোর থেকে এই অ্যাপটি ডাউনলোড করার জন্য এখানে ক্লিক করুন

৩. WeVideo

WeVideo Video Editor

আমাদের ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যারের তালিকায় WeVideo হল তৃতীয় নাম। এই সফটওয়্যারটি সম্পর্কে অনেকেই হয়তো জানেন না কিন্তু অনেকেই হয়তো জানেন। এটি একটি ক্লাউড ভিত্তিক ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার। অর্থাৎ, আপনি ডিভাইসে ইনস্টল না করেই ওয়েব ব্রাউজার থেকে ভিডিও সম্পাদনা করতে পারেন। ক্লাউড ভিত্তিক হাওয়াই এই সফ্টওয়্যারটিতে আপনি আপনার গুগল ড্রাইভ অ্যাকাউন্ট যুক্ত করতে পারেন এবং সম্পাদিত ভিডিও সরাসরি গুগল ড্রাইভে আপলোড করতে পারেন। তাছাড়া, আপনি চাইলে এই ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যারের সাথে আপনার ইউটিউব চ্যানেল সংযুক্ত রাখতে পারেন, তাই ভিডিও এডিটিং শেষ হলে সরাসরি ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করতে পারেন। সফটওয়্যারটি ব্রাউজার থেকে ব্যবহার করতে চাইলে WeVideo এর ওয়েবসাইটে চলে যান আর এন্ড্রয়েড ফোনে ব্যবহার করতে চাইলে এখান থেকে ইন্সটল করে নিন।

৪. Adobe Premiere Rush

Adobe Premiere Rush

Adobe Premiere Rush হল Adobe Systems Inc-এর একটি Android ভিডিও সম্পাদনা সফ্টওয়্যার৷ আপনি যদি আগে Adobe সফ্টওয়্যার ব্যবহার করে থাকেন তবে আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে যে কতটা প্রিমিয়াম অ্যাডোব সফ্টওয়্যার৷ এই সফ্টওয়্যার কোন ব্যতিক্রম নয়. আপনি এই সফ্টওয়্যারটিতে ভিডিও সম্পাদনার জন্য সমস্ত প্রিমিয়াম বৈশিষ্ট্য পাবেন এবং এটিতে একটি উচ্চ মানের ভিডিও সম্পাদনা করার জন্য আপনার প্রয়োজনীয় সমস্ত সরঞ্জাম রয়েছে৷ তাছাড়া এই সফটওয়্যারটির ইউজার ইন্টারফেস বেশ ভালো। ফলে আপনি সহজেই ভিডিও এডিটিং করতে পারবেন। কিন্তু যেহেতু এটি একটি উচ্চ মানের ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার তাই এর সাইজ অন্যান্য সফটওয়্যার থেকে একটু বড়। আর এই সফটওয়্যারটির প্রিমিয়াম ভার্সন দিয়ে আপনি 4K ভিডিও এক্সপোর্ট করতে পারবেন। প্লে স্টোর থেকে এই অ্যাপটি ডাউনলোড করার জন্য এখানে ক্লিক করুন

৫. PicPlayPost

PicPlayPost

বেশিরভাগ সময় আমাদের একাধিক ভিডিও সহ কোলাজ ভিডিও এবং স্লাইড শো ভিডিও তৈরি করতে হয়। PicPlayPost এই ধরনের সম্পাদনার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রয়োজনীয় সফ্টওয়্যার। আমরা প্রায়ই ইনস্টাগ্রাম বা ফেসবুকে বিভিন্ন ধরনের কোলাজ ভিডিও দেখতে পাই। আপনি যদি এই ধরনের ভিডিও তৈরি করতে চান, তাহলে আপনি সহজেই PicPlayPost সফটওয়্যার দিয়ে তৈরি করতে পারেন। তাছাড়া, এই সফ্টওয়্যারটির সাহায্যে আপনি Gifs তৈরি করতে পারেন এবং সর্বাধিক 4K পর্যন্ত ভিডিও রপ্তানি করতে পারেন৷ ভালো ফিচারের পাশাপাশি এই সফটওয়্যারের কিছু খারাপ দিকও রয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, বেশিরভাগ বৈশিষ্ট্য ব্যবহার করার জন্য, আপনাকে এই অ্যাপটির প্রিমিয়াম সংস্করণ ব্যবহার করতে হবে এবং আপনি যদি প্রিমিয়াম সংস্করণ ব্যবহার না করেন তবে ভিডিওতে ওয়াটারমার্ক দেখা যাবে। সফটওয়্যারটি গুগল প্লে স্টোর থেকে 5 মিলিয়নেরও বেশি বার ইনস্টল করা হয়েছে। সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন

৬. VideoShow

VideoShow

VideoShow আমাদের তালিকার ৬ষ্ঠ সফটওয়্যার। এই সফটওয়্যারের সাহায্যে আপনি ভিডিও এডিটিং ছাড়াও আরও অনেক ধরনের কাজ করতে পারবেন। যেমন এই অ্যাপের সাহায্যে আপনি যেকোনো ভিডিও থেকে অডিও আলাদা করতে পারবেন, ভিডিওর সাইজ কমপ্রেস করতে পারবেন, অডিওতে বিভিন্ন ইফেক্ট দিতে পারবেন, রিভার্স ভিডিও তৈরি করতে পারবেন ইত্যাদি। আর এই সফটওয়্যারে রয়েছে আকর্ষণীয় সব গ্রাফিক্স, অ্যানিমেটেড ভিডিও। , ইমোজি ইত্যাদি। এই সফ্টওয়্যারটির সাহায্যে আপনি 4K এর পাশাপাশি 60FPS তে ভিডিও রপ্তানি করতে পারেন। সফ্টওয়্যারটির 400 মিলিয়নেরও বেশি ব্যবহারকারী রয়েছে এবং প্লে স্টোর থেকে 100 মিলিয়নেরও বেশি বার ইনস্টল করা হয়েছে। এই সফ্টওয়্যারটি স্মার্ট ফোন দিয়ে ব্লগিং এবং ব্লগিং ভিডিও সম্পাদনা করার জন্য উপযুক্ত। প্লে স্টোর থেকে সফটওয়্যার টি ইন্সটল করতে এখানে ক্লিক করুন

৭. PowerDirector

PowerDirector

PowerDirector স্মার্টফোনে ভিডিও সম্পাদনার জন্য একটি জনপ্রিয় সফটওয়্যার। অনেকেই হয়তো এই সফটওয়্যারটি সম্পর্কে আগে থেকেই অবগত আছেন। এই সফ্টওয়্যারটি ব্যবহার করার সময় আপনি একটি প্রিমিয়াম ভিডিও সম্পাদনা সফ্টওয়্যার ফিল পাবেন। এই সফ্টওয়্যারটিতে সবুজ ত্বক সম্পাদনা এবং গতি ট্র্যাকিংয়ের মতো সমস্ত প্রয়োজনীয় বৈশিষ্ট্য রয়েছে। টাইমলাইন সহ ভিডিও সম্পাদনা করার একটি বিকল্প রয়েছে যাতে আপনি খুব সহজে এবং সুন্দরভাবে ভিডিও সম্পাদনা করতে পারেন। সফ্টওয়্যারটি প্লে স্টোর থেকে 100 মিলিয়নেরও বেশি বার ইনস্টল করা হয়েছে এবং রেটিংও খুব ভাল। তাছাড়া সফটওয়্যারটিতে বিভিন্ন ধরনের অ্যানিমেশন রয়েছে যা নিয়মিত আপডেট করা হয়। সফটওয়্যার প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন

৮. Quik

GoPro Quik

আপনারা অনেকেই হয়তো GoPro এর কথা শুনেছেন। যারা আশ্চর্যজনক সব অ্যাকশন ক্যামেরা তৈরি করে চলেছেন। কুইক সফটওয়্যার হল একটি ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার যা GoPro কোম্পানির তৈরি। GoPro প্রাথমিকভাবে তাদের অ্যাকশন ক্যামেরা ব্যবহারকারীদের তোলা ফুটেজ ক্যাপচার করার জন্য সফ্টওয়্যারটি তৈরি করেছে যাতে তারা সফ্টওয়্যারটির সাথে সম্পাদনা করতে পারে। কিন্তু এই ভিডিও এডিটরের মাধ্যমে আপনি চাইলে যেকোনো ভিডিও এডিট করতে পারবেন। এই সফ্টওয়্যারটিতে আপনি একসাথে 75টি ছবি বা ভিডিও সহ ভিডিও সম্পাদনা করতে পারেন। যেহেতু এটি GoPro-এর একটি সফ্টওয়্যার, এতে GoPro ক্যামেরা থেকে সরাসরি ফুটেজ আমদানি করার একটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য রয়েছে। আপনি প্লেস্টোর থেকে সফটওয়্যারটি বিনামূল্যে ডাউনলোড করতে পারেন। প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করার জন্য এখানে ক্লিক করুন

৯. KineMaster

KineMaster

এবার আমাদের তালিকায় থাকা সফটওয়্যারটি প্রায় সবারই পরিচিত একটি সফটওয়্যার। যার নাম কাইনমাস্টার। আমরা অনেকেই ইতিমধ্যে এই সফটওয়্যার দিয়ে ভিডিও এডিটিং করেছি বা করছি। এটি স্মার্টফোনের শীর্ষ ভিডিও সম্পাদনা সফ্টওয়্যারগুলির মধ্যে একটি। এই সফ্টওয়্যারটিতে একটি ভিডিও পুরোপুরি সম্পাদনা করার জন্য প্রয়োজনীয় প্রায় সমস্ত বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এই সফটওয়্যারটিতে মাল্টিলেয়ার দিয়ে কাজ করার সুবিধা রয়েছে। এটি আপনাকে খুব দ্রুত এবং নিখুঁত উপায়ে ভিডিও সম্পাদনা করতে দেয়। এই সফ্টওয়্যারটির অনেক ধরণের মুড সংস্করণ অনলাইনে উপলব্ধ। তাই আপনি সহজেই অনলাইনে ওয়াটারমার্ক ফ্রি অ্যাপ ডাউনলোড করতে পারেন। তাছাড়া আপনারা চাইলে প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করতে পারেন। প্লে স্টোর থেকে KineMaster ডাউনলোড করার জন্য এখানে ক্লিক করুন

১০. VivaVideo

VivaVideo

আমাদের তালিকার সর্বশেষ সফ্টওয়্যারটিকে VivaVideo বলা হয়। এই সফ্টওয়্যারটির বিকাশকারী হল QuVideo Inc৷ VivaVideo হল Android এর জন্য একটি সর্ব-ইন-ওয়ান ভিডিও সম্পাদনা সফ্টওয়্যার৷ এই সফটওয়্যারটির মাধ্যমে আপনি ভিডিও ট্রিমিং, মার্জিং, স্পীড আপ, স্পিড রিডাকশন, রিভার্স, ব্লারিং, অডিও এডিটিং সহ প্রায় সব ধরনের ভিডিও এডিটিং করতে পারবেন। আপনি এই সফ্টওয়্যারটিতে সমস্ত ট্রেন্ডিং ইফেক্ট টেমপ্লেট এবং ফিল্টার পাবেন এবং সেগুলি নিয়মিত আপডেট করা হয়। তাই আপনি যদি খুব সহজে ভিডিও এডিটিং করতে চান, অর্থাৎ আপনার খুব বেশি ভিডিও এডিটিং দক্ষতা নেই, তাহলে আপনি এই সফটওয়্যারটি দিয়ে খুব সহজেই ভিডিও এডিটিং করতে পারবেন। সফটওয়্যারটি গুগল প্লে স্টোর থেকে 100 মিলিয়নেরও বেশি বার ডাউনলোড করা হয়েছে। VivaVideo সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করার জন্য এখানে ক্লিক করুন

আরো পড়ুনঃ 

আমি এ পর্যন্ত যে দশটি সেরা ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার নিয়ে আলোচনা করেছি তার মধ্যে আশা করি আপনি সহজেই আপনার পছন্দের ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যারটি বেছে নিতে পারবেন। আপনি যদি ভিডিও এডিটিং সম্পর্কে কিছু না বুঝেন তবে আপনি এটি ইউটিউবে টাইপ করে খুঁজে পেতে পারেন এবং সফ্টওয়্যারের নাম উল্লেখ করে আপনি যে সফ্টওয়্যারটি ব্যবহার করছেন তা দিয়ে কীভাবে এটি করবেন তা সহজেই খুঁজে পেতে পারেন। এবং এই ধরনের আরও আকর্ষণীয় বিষয় পেতে আপনি নিয়মিত আমাদের ব্লগে যেতে পারেন এবং আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

0 Shares:
Leave a Reply

Your email address will not be published.

You May Also Like