ঘরে বসে জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য আবেদন করার নিয়ম

jonmo nibondhon online registration
jonmo nibondhon online registration

একটা সময় ছিল যখন জন্ম নিবন্ধন সনদ পেতে অনেক কষ্ট করতে হতো। জন্ম নিবন্ধন শংসাপত্রের জন্য আবেদন করতে আপনাকে অনেক জায়গায় ছুটতে হবে। কিন্তু এখন বাংলাদেশ দিন দিন ডিজিটাল বাংলাদেশ হয়ে উঠছে। তাই আপনি সহজেই অনলাইনে এই সমস্ত কাজ করতে পারেন। তাই আজ আমি আপনাদের দেখাবো কিভাবে ঘরে বসে যে কেউ জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য আবেদন করবেন। অনলাইনে জন্ম নিবন্ধনের জন্য প্রাথমিকভাবে আপনার একটি স্মার্টফোন বা ডেস্কটপ কম্পিউটার থাকতে হবে।

jonmo nibondhon online registration
jonmo nibondhon online registration

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন করতে হলে যে সকল ডকুমেন্ট থাকতে হবেঃ

অনলাইন জন্ম নিবন্ধন বয়সের উপর নির্ভর করে নথির ধরন অনুসারে পরিবর্তিত হতে পারে। নীচে বয়সসীমা সহ নথিগুলির প্রকারগুলি রয়েছে৷

শুন্য থেকে ৪৫ দিন বয়সী শিশুর জন্ম নিবন্ধনের জন্য যে সকল ডকুমেন্ট থাকতে হবেঃ

মেডিকেল প্রতিষ্ঠান কর্তৃক প্রদত্ত জন্ম শংসাপত্রের সত্যায়িত অনুলিপি বা চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক প্রত্যয়িত জন্ম শংসাপত্র বা জন্ম পরিচর্যার সত্যায়িত অনুলিপি বা সম্পূর্ণ আবেদনপত্রে EPI কার্ডের সত্যায়িত অনুলিপি।
পিতা/মাতা/দাদা/ঠাকুমা বা জাতীয় পরিচয়পত্র বা পিতা/মাতা/দাদা/নানীর স্থায়ী ঠিকানা বা জমি বা বাড়ি ক্রয়ের দলিল, ভাড়ার পাসপোর্টের নামে স্থায়ী ঠিকানা হিসেবে ঘোষিত বসবাসের স্থানের বিপরীতে হালনাগাদ কর পরিশোধের শংসাপত্র। এবং ট্যাক্স প্রদানের রসিদ। (অন্য কোনো কারণে নদী ভাঙ্গনের কারণে স্থায়ী ঠিকানা হারিয়েছে)
পিতামাতার অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সহ জাতীয় পরিচয়পত্র।
আবেদনকারী/অভিভাবকের মোবাইল নম্বর।

৪৬ দিন থেক ৫ বছর বয়সী শিশুর জন্ম নিবন্ধনের জন্য যে সকল ডকুমেন্ট থাকতে হবেঃ

  • টিকার কার্ড/স্বাস্থ্যকর্মীর শংসাপত্র স্বাক্ষর ও সিল সহ প্যাডে থাকতে হবে।
  • পিতা-মাতার অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সহ জাতীয় পরিচয়পত্র।
  • প্রয়োজনে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের প্রত্যয়নসহ বিদ্যালয়ের প্রত্যয়নের জন্য প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্র প্রয়োজন হবে।
  • বাড়ির হোল্ডিং নম্বর এবং চৌকিদারি করের রশিদ।
  • আবেদনকারী/অভিভাবকের মোবাইল নম্বর।
  • ফর্মের সাথে এক কপি রঙিন পাসপোর্ট সাইজ ছবি।

বয়স ৫ বছরের বেশি হলে জন্ম নিবন্ধনের জন্য যে সকল ডকুমেন্ট থাকতে হবেঃ

  • শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেট (PSC/JSC/SSC) আপনার কাছে শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেট না থাকলে, সরকারি হাসপাতালের এমবিবিএস ডাক্তারের স্বাক্ষর ও সীল সহ সার্টিফিকেট এবং জন্ম নিবন্ধন আবেদনপত্রের 6 নম্বর কলামের স্বাক্ষর ও সীলমোহর বাধ্যতামূলক।
  • 1 জানুয়ারি, 2001-এর পরে জন্মগ্রহণকারীদের জন্য, পিতামাতার অনলাইন জন্ম নিবন্ধনের সাথে জাতীয় পরিচয়পত্র বাধ্যতামূলক।
  • 1 জানুয়ারি, 2001-এর আগে যাদের জন্ম তাদের জন্য জাতীয় পরিচয়পত্র বাধ্যতামূলক।
  • যদি জন্ম 2001 এর আগে হয় তবে পিতামাতার মৃত্যুর ক্ষেত্রে মৃত্যু শংসাপত্র বাধ্যতামূলক।
  • যাদের পিতামাতা 1 জানুয়ারি, 2001 এর পরে মারা গেছেন তাদের প্রথমে একটি অনলাইন জন্ম নিবন্ধন শংসাপত্র এবং তারপর একটি অনলাইন মৃত্যু নিবন্ধন শংসাপত্র পেতে হবে৷ উভয় শংসাপত্র আবেদনপত্রের সাথে জমা দিতে হবে।
  • বাসার হোল্ডিং নম্বর ও চৌকিদারী ট্যাক্সের রশিদের হাল সন।
  • আবেদনকারী/অভিভাবকের মোবাইল নম্বর।
  • ফরমের সঙ্গে এক কপি রঙিন পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • সরকারি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য/ইউনিয়ন সদস্যের স্বাক্ষরযুক্ত দলিল বাধ্যতামূলক।

তাই শর্ত অনুযায়ী বোঝা গেল যে কারো জন্ম নিবন্ধন করতে হলে তার বাবা-মায়ের অনলাইনে জন্ম নিবন্ধনের নম্বর লাগবে। যদি বাবা-মায়ের অনলাইন জন্ম নিবন্ধন না থাকে, তবে তাদের প্রথমে তাদের জন্ম নিবন্ধন করতে হবে, তারপর তাদের নিজের জন্ম নিবন্ধন করতে হবে এবং পিতামাতা মারা গেলে তাদের একটি মৃত্যু শংসাপত্র প্রয়োজন।

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য আবেদন করার নিয়মঃ

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য আবেদন করার জন্য প্রথমে এই লিংকে (https://bdris.gov.bd/br/application) প্রবেশ করুন। এবার ঐ পাতার সব লেখা মনোযোগ দিয়ে পড়ুন। নইলে পরে কোনো ভুল হলে ঝামেলায় পড়তে হবে। শুরুতে আপনাকে সেই ঠিকানাটি নির্বাচন করতে হবে যেখান থেকে আপনি জন্ম নিবন্ধন সনদ সংগ্রহ করতে চান। এক্ষেত্রে আপনি আপনার সুবিধামতো জায়গা বেছে নিন। অবস্থান নির্বাচন করার পরে, পরবর্তী বোতামে ক্লিক করুন।

জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য আবেদন করার নিয়ম

এবার নিবন্ধনাধীন ব্যক্তির পরিচিতি এবং জন্মস্থানের ঠিকানা লিখার জন্য কতগুলো টেক্সট বক্স দেখতে পাবেন। এই ফরমটি সম্পূর্ণভাবে ফিলাপ করে পরবর্তী বাটনে ক্লিক করুন।

জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য আবেদন করার নিয়ম

এখন আপনাকে আবেদনকারীর তথ্য ইনপুট করতে হবে। তবে এক্ষেত্রে শুধুমাত্র পিতা ও মাতার জন্ম নিবন্ধন সনদের নম্বর ম্যানুয়ালি ইনপুট দেওয়া যাবে। বাবা ও মায়ের জন্ম নিবন্ধন সনদের নম্বর লিখলে তাদের নাম ও জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর স্বয়ংক্রিয়ভাবে চলে আসবে। চাইলেও এখানে বাবা-মায়ের তথ্য পরিবর্তন করা যাবে না। তাই আবেদনকারীর পিতা বা মাতার তথ্যে কোনো ভুল থাকলে জন্ম নিবন্ধনের আবেদন করার আগে তা সংশোধন করাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে। অন্যথায়, আবেদনকারী এবং আবেদনকারীর পিতা বা মাতা উভয়ের জন্ম নিবন্ধন সনদ (যার তথ্য ভুল) পরে সংশোধন করতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য আবেদন করার নিয়ম

এখন আবেদনকারীকে জন্মস্থান, স্থায়ী ঠিকানা এবং বর্তমান ঠিকানা ইনপুট করতে হবে। জন্মস্থান এবং স্থায়ী ঠিকানা একই হলে চেকবক্সে টিক দিন। একইভাবে, যদি বর্তমান ঠিকানাটি স্থায়ী ঠিকানার মতো হয় তবে পরবর্তী চেকবক্সে টিক দিন।

জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য আবেদন করার নিয়ম

ঠিকানা দেওয়া হয়ে গেলে, আবেদনকারীকে সার্টিফিকেট ইনপুট দিতে হবে। অর্থাৎ কে আবেদন করছেন তার কিছু তথ্য দিতে হবে। এক্ষেত্রে আবেদনকারীর বয়স ১৮ বছরের বেশি হলে তিনি নিজেই আবেদন করতে পারবেন। তবে আবেদনকারীর বাবা-মায়ের বয়স ১৮ বছরের নিচে হলে বা কোনো আইনি অভিভাবক আবেদন করবেন। তারপরে আপনাকে আবেদনকারীর মোবাইল নম্বর ইনপুট করতে হবে এবং বয়স অনুযায়ী আপনাকে আবেদনকারীর প্রয়োজনীয় সমস্ত নথি আপলোড করতে হবে। নথির আকার সর্বাধিক 100 কিলোবাইট হতে হবে৷ আপনি এই পৃষ্ঠায় সমস্ত তথ্য প্রদান করা শেষ হলে, পরবর্তী বোতামে ক্লিক করুন।

জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য আবেদন করার নিয়ম

এখন আপনি এখন পর্যন্ত যে সমস্ত তথ্য ইনপুট করেছেন তা এক পেজে দেখতে পাবেন। তথ্য ভালো করে দেখে নিন। যদি কোন ত্রুটি পরিলক্ষিত হয়, আপনি পূর্ববর্তী বোতামে ক্লিক করে এটি সংশোধন করতে পারেন। কোন ভুল না থাকলে সাবমিট বাটনে ক্লিক করুন।

জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য আবেদন করার নিয়ম

আপনি সাবমিট বোতামে ক্লিক করার সাথে সাথে জন্ম নিবন্ধন শংসাপত্রের জন্য আবেদন জমা দেওয়া হবে এবং আপনাকে একটি আবেদন নম্বর দেওয়া হবে। এই নম্বর সংরক্ষণ করুন. পরে আবেদনপত্রের অবস্থা জানতে এই নম্বরের প্রয়োজন হবে। এখন প্রিন্ট অ্যাপ্লিকেশন ফর্ম বোতামে ক্লিক করে আবেদনপত্র ডাউনলোড করুন।

এখন আপনাকে ডাউনলোড করা আবেদনপত্র প্রিন্ট করতে হবে। সমস্ত প্রয়োজনীয় নথি সহ আবেদনপত্রটি অবশ্যই 15 দিনের মধ্যে আপনার রেজিস্ট্রার অফিসে পৌঁছে দিতে হবে। প্রয়োজনীয় ফি রেখে আপনি কখন জন্ম নিবন্ধন শংসাপত্র পেতে পারেন তারা আপনাকে জানাবে। আপনি যদি 15 দিনের মধ্যে আবেদন জমা না দেন, তাহলে আপনার আবেদন বাতিল করা হবে।


আমরা আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন কিভাবে একটি কম্পিউটার বা মোবাইল ফোন ব্যবহার করে ঘরে বসে জন্ম নিবন্ধন শংসাপত্রের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে হয়। আজকের বিষয় ভালো লাগলে অন্যদের সাথে শেয়ার করুন। এই ধরনের আরও গুরুত্বপূর্ণ বিষয় পেতে আপনি নিয়মিত আমাদের ব্লগে যেতে পারেন।

0 Shares:
1 comment
Leave a Reply

Your email address will not be published.

You May Also Like